জাতীয় বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি জাদুঘর বিজ্ঞানমনস্ক জাতি গঠনে প্রতিশ্রুতিবদ্ধ, গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকার
মেনু নির্বাচন করুন
Text size A A A
Color C C C C
সর্ব-শেষ হাল-নাগাদ: ২২nd জুলাই ২০১৯

আমাদের কথা

জাতীয় বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি জাদুঘর একটি স্বায়ত্তশাসিত প্রতিষ্ঠান। তদানীন্তন পাকিস্তান সরকার ২৬ এপ্রিল, ১৯৬৫ সালে এক নির্বাহী আদেশের মাধ্যমে জাতীয় বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি জাদুঘর আত্মপ্রকাশ করে। প্রতিষ্ঠানটি অনানুষ্ঠানিক বিজ্ঞান শিক্ষা কেন্দ্র হিসেবে কার্যক্রম চালিয়ে যাচ্ছে।

 

মিশন: বিজ্ঞান বিষয়ক প্রদর্শনীবস্তুর মাধ্যমে বিজ্ঞান ও প্রযুক্তিকে   জনপ্রিয় করা এবং নবীন ও অপেশাদার বিজ্ঞানীদের উদ্ভাবনীমূলক কাজে উৎসাহ ও সহযোগিতা প্রদান।

ভিশন:  একটি বিজ্ঞান মনস্ক জাতি গঠন।

 

জাতীয় বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি জাদুঘরে  ৮টি গ্যালারি রয়েছে।  গ্যালারিগুলো হলোঃ-

(১) ভৌত বিজ্ঞান গ্যালারি

(২) শিল্প প্রযুক্তি গ্যালারি

(৩) জীব বিজ্ঞান গ্যালারি

(৪) তথ্য প্রযুক্তি গ্যালারি

(৫) মজার বিজ্ঞান গ্যালারি

(৬) শিশু বিজ্ঞান গ্যালারি

(৭) মহাকাশ বিজ্ঞান গ্যালারি

(৮) ইনোভেশন গ্যালারি / তরুণ বিজ্ঞানীদের উদ্ভাবিত প্রকল্পের গ্যালারি

তাছাড়া রয়েছে সায়েন্স পার্ক , আকাশ পর্যবেক্ষণ মানমন্দির এবং  বিজ্ঞান গ্রন্থাগার ।

জাদুঘর জনপ্রিয় বিজ্ঞান বিষয়ক বক্তৃতামালা,  বিজ্ঞান ভিত্তিক ভিডিও প্রদর্শনীর আয়োজন করে থাকে। বিজ্ঞান জাদুঘর তরুণ বিজ্ঞানীদের উদ্ভাবনীমূলক কাজে সহায়তা করে থাকে ।

 

জাতীয় বিজ্ঞান  প্রযুক্তি জাদুঘরের লক্ষ্য  উদ্দেশ্যসমূহ

  • জনসাধারণের মধ্যে বিজ্ঞান অনুরাগ ও বিজ্ঞান সচেতনতা সৃষ্টি করা;
  • বিজ্ঞান ও প্রযুক্তিকে জনপ্রিয় করা;
  • জাদুঘরে স্থায়ী বিজ্ঞান প্রদর্শনী স্থাপন করা;
  • বিজ্ঞান মেলা, বিজ্ঞান প্রদর্শনী এবং বিজ্ঞান বিষয়ক নানাবিধ প্রতিযোগিতার আয়োজন করা;
  • ভ্রাম্যমান বিজ্ঞান প্রদর্শনীর ব্যবস্থা করা ;
  • বিজ্ঞান ও প্রযুক্তির বিভিন্ন বিষয়ে প্রকাশনার ব্যবস্থা করা;
  • বক্তৃতামালা, সেমিনার ও সম্মেলনের ব্যবস্থা করা ;
  • জাদুঘরের উন্নয়নে প্রদর্শনীবস্ত্তসমূহের সাহায্যে গবেষণামূলক কর্মকান্ডের ব্যবস্থা করা;
  • প্লানেটরিয়াম স্থাপনসহ মহাকাশ বিজ্ঞান চর্চার ব্যবস্থা করা;
  • স্কুল ও কলেজসমূহের বিজ্ঞান শিক্ষার পরিপূরক হিসেবে শিক্ষামূলক কার্যক্রমের ব্যবস্থা করা;
  • বিজ্ঞান শিক্ষার যুগোপযোগী কার্যক্রম গ্রহণ করা ;
  • নবীন ও সৌখিন বিজ্ঞানীদের উদ্ভাবনমূলক কাজে উৎসাহ ও সহযোগিতা প্রদান করা ;
  • দেশের বিজ্ঞান ক্লাবগুলোকে সাহায্য, সহযোগিতা ও উৎসাহ দান এবং তাদের পরস্পরের মধ্যে
  • সমন্বয় সাধনের মাধ্যমে বিজ্ঞান আন্দোলনকে জোরদার করা ;
  • বিভিন্ন প্রদর্শনীর মাধ্যমে বিজ্ঞান ও প্রযুক্তির অগ্রগতির ইতিহাস তুলে ধরা ;
  • বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিষয়ক প্রাচীন ও আধুনিক নিদর্শনাবলী সংগ্রহ, সংরক্ষণ ও প্রায়োগিক ব্যবস্থা করা ।
  • মানব জাতির কল্যাণে বিজ্ঞান ও প্রযুক্তির অবদানের ও বিজ্ঞানীদের কীর্তিসমূহের ভূমিকা সঠিকভাবে উপলব্ধিতে জনসাধারণকে সাহায্য করা।

 

জাতীয় বিজ্ঞান  প্রযুক্তি জাদুঘরের বর্তমান কার্যক্রমঃ

জাতীয় বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি জাদুঘরের কার্যক্রম মূলতঃ ৪টি ভাগে ভাগ করা যায় ।

ক)   গ্যালারি প্রদর্শন

খ)   শিক্ষা কার্যক্রম

গ)   প্রকাশনা

(ঘ) ভ্রাম্যমান বিজ্ঞান জাদুঘর ও চতুর্মাত্রিক (4D) মুভি প্রদর্শনী

 

ক) গ্যালারি প্রদর্শন :- জাদুঘরের গ্যালারিগুলো হলো ভৌত বিজ্ঞান গ্যালারি, মজার বিজ্ঞান গ্যালারি, জীব বিজ্ঞান গ্যালারি, তথ্য-প্রযুক্তি গ্যালারি, শিল্প প্রযুক্তি গ্যালারি, শিশু বিজ্ঞান গ্যালারি, মহাকাশ গ্যালারি এবং ইনোভেশন বিজ্ঞান গ্যালারি। তাছাড়া বহিরাঙ্গন প্রদর্শনীবস্ত্তর মধ্যে রয়েছে সায়েন্স পার্ক, ডাইনোসারের ভাস্কর্য, সূর্য ঘড়ি  পুরাতন বিমান।

 

পরিদর্শনের সময়ঃ

রবিবার থেকে বুধবার : সকাল ৯.০০ টা থেকে বিকাল ৫.০০টা

শুক্রবার দুপুর ২.৩০টা থেকে সন্ধ্যা ৭.০০টা

শনিবার সকাল ৯.০০টা থেকে সন্ধ্যা ৬.০০টা

(গ্যালারিসমূহ বৃহস্পতিবার সাপ্তাহিক বন্ধ ও অন্যান্য সরকারী ছুটির দিন বন্ধ থাকে)

বিশেষ দিবসঃ

  • জাতীয় শিশু দিবস ও জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মদিবস, ১৭ মার্চ।
  • মহান স্বাধীনতা ও জাতীয় দিবস, ২৬ মার্চ।
  • মহান বিজয় দিবস, ১৬ ডিসেম্বর।

উপরোক্ত বিশেষ দিবসসমূহে জাদুঘরের গ্যালারিসমূহ খোলা রাখা হয়।

প্রবেশমূল্যঃ ১০(দশ) টাকা।

4D মুভি প্রদর্শনী মূল্য: ৪০ (চল্লিশ) টাকা।

 

টেলিস্কোপের সাহায্যে আকাশ পর্যবেক্ষণ

প্রতি শুক্র ও শনিবার সন্ধ্যায় আকাশ মেঘমুক্ত থাকা সাপেক্ষে ১০ টাকা টিকেটের বিনিময়ে শক্তিশালী টেলিস্কোপের সাহায্যে চাঁদ, শুক্রগ্রহ, মঙ্গলগ্রহ, শনিগ্রহ, বৃহস্পতিগ্রহ, এ্যান্ড্রোমিডা গ্যালাক্সি, রিংনেবুলা, সেভেন সিস্টার, জোড়াতারা ও তারার ঝাঁক পর্যবেক্ষণ করা যায়।

 

খ) শিক্ষা কার্যক্রম

জাতীয় বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি জাদুঘর একটি অনানুষ্ঠানিক বিজ্ঞান শিক্ষামূলক প্রতিষ্ঠান। এখানে নিয়মিতভাবে বিজ্ঞান ও প্রযুক্তির উপর বিভিন্ন সময়ে জনপ্রিয় বক্তৃতার আয়োজন করা হয়। এই সব অনুষ্ঠানে স্কুল-কলেজ, বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র-ছাত্রী, বিজ্ঞান ক্লাবের সদস্যবৃন্দ, বিশিষ্ট বিজ্ঞানী, প্রযুক্তিবিদ, গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গসহ বিপুল সংখ্যক বিজ্ঞানামোদী শ্রোতার সমাবেশ ঘটে। দেশের বিশিষ্ট বিজ্ঞানী , প্রযুক্তিবিদ ও বিজ্ঞান শিক্ষকবৃন্দ অনুষ্ঠানসমূহে বিশেষজ্ঞ বক্তা হিসেবে নির্ধারিত বিষয়ের উপর গুরুত্বপূর্ণ বক্তব্য রাখেন। ইহা ছাড়া ভ্রাম্যমাণ জাদুঘর মিউজুবাসের মাধ্যমে সারা দেশে বিজ্ঞান প্রদর্শনীর আয়োজন করা হয়।

 

গ) প্রকাশনা

নবীন বিজ্ঞানী পত্রিকা, জনপ্রিয় বিজ্ঞান বিষয়ক বক্তৃতামালার গ্রন্থ, জাতীয় বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি সপ্তাহের বার্ষিক প্রতিবেদন ও বাৎসরিক কার্যক্রমের উপর পোস্টার ও লিফলেট প্রকাশ করা হয়।

 

ঘ) ভ্রাম্যমান বিজ্ঞান জাদুঘর ও 4D (চর্তুমাত্রিক) মুভি প্রদর্শনী:

ভ্রাম্যমান বিজ্ঞান জাদুঘর প্রদর্শনীর জন্য রয়েছে প্রায় ৪০ ফুট দীর্ঘ একটি মিউজু বাস যার ভিতর ও বাহিরের অংশে মোট ২৪টি বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিষয়ক প্রদর্শনী সংযুক্ত আছে। বিনোদনের জন্য রয়েছে একটি 4D (চতুর্মাত্রিক) মুভি বাস। যেখানে২০টি আসনের মাধ্যমে দেশের প্রত্যন্ত অঞ্চলের শিক্ষার্থীদের বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিষয়ক ধারণা প্রদান করা হয়। মিউজুবাসে একটি টেলিস্কোপও আছে, যা সন্ধ্যার পর রাতের আকাশে আকাশপ্রেমীদের জন্য চাঁদ, গ্রহ, তারা ও গ্যালাক্সি পর্যবেক্ষণের ব্যবস্থা করা হয়।

লাইব্রেরী / গ্রন্থাগার:

জাতীয় বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি জাদুঘরের ২য় তলায় মাঝারী আকারের একটি বিজ্ঞান বিষয়ক গ্রন্থাগার রয়েছে। বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি সম্পর্কিত প্রায় সাত হাজার দেশি-বিদেশী বইয়ের সংগ্রহশালা এই গ্রন্থাগারটি। এসবের মধ্যে রয়েছে বিজ্ঞান ও প্রযুক্তিভিত্তিক বেশ কিছু এনসাইক্লোপিডিয়া, বিজ্ঞানের মৌলিক বিষয় পদার্থ, রসায়ন, উদ্ভিদ ও প্রাণীবিদ্যা, গণিত এবং কম্পিউটার বিজ্ঞান ও ইঞ্জিনিয়ারিং, জ্যোতির্বিদ্যা, ভূগোল, লাইফ সাইন্স, বৈজ্ঞানিক কল্পকাহিনী ইত্যাদি বিষয়ের উপর দেশী ও বিদেশী বইসমূহ। এছাড়া চলতি ঘটনাপ্রবাহের ওপর জার্নাল ও পিরিয়ডিক্যালস এবং কিছু গবেষনামূলক গ্রন্থও আছে। গ্রন্থাগারটি রবিবার থেকে বৃহঃপতিবার সকাল ৯:০০টা থেকে বিকাল ৫:০০টা পর্যন্ত খোলা থাকে। সাধারণত শিক্ষার্থী, বিজ্ঞান অনুরাগী ও গবেষকবৃন্দ এই গ্রন্থাগারের পাঠক। গ্রন্থাগারটি সকলের জন্য উন্মুক্ত।

 

ওয়ার্কশপ:

জাতীয় বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি জাদুঘরের নীচতলায় একটি ওয়ার্কশপ আছে। সাধারণ কর্মকান্ডে এটি ব্যবহৃত হলেও এর বিশেষ উদ্দেশ্য হলো প্রদর্শনীবস্তু মেরামত ও সংরক্ষন করা। ওয়ার্কশপটিতে সাধারণত মেশিনিং, ওয়েল্ডিং, প্যাটার্ন মেকিং ইত্যাদি কাজ করা হয়।

 

কেন্দ্রীয় পর্যায়ের কর্মসূচী প্রধানত ৫টি ভাগে বিভক্ত :-

ক) প্রতিযোগিতামূলক বিজ্ঞান প্রদর্শনী

খ) বিজ্ঞান অলিম্পিয়াড আয়োজন

গ) বিজ্ঞান বিষয়ক কুইজ প্রতিযোগিতা আয়োজন

ঘ) সিম্পোজিয়াম ও আলোচনা সভা

ঙ) বিজ্ঞান বিষয়ক গবেষণায় নিয়োজিত প্রতিষ্ঠানসমূহের নিজস্ব প্রদর্শনী

এছাড়াও বিজ্ঞান বিষয়ক নাটক, বিতর্ক প্রতিযোগিতা, চিত্রাঙ্কন প্রতিযোগিতার আয়োজনও করা হয়।

 

জাতীয় বিজ্ঞান   প্রযুক্তি সপ্তাহ

১৯৭৮ সাল থেকে জাতীয় বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি সপ্তাহ উদযাপিত হয়ে আসছে। জাতীয় বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি সপ্তাহের প্রতিযোগিতা ও বিজ্ঞান মেলা দু‘টি পর্যায়ে অনুষ্ঠিত হয়।

ক) আঞ্চলিক পর্যায়ে প্রতিটি জেলা কেন্দ্রে এবং

খ) কেন্দ্রীয় পর্যায়ে ঢাকায়

 

আঞ্চলিক পর্যায়ের অনুষ্ঠান  বিজ্ঞান মেলা:-

আঞ্চলিক পর্যায়ের অনুষ্ঠানে জেলায় অবস্থিত সকল উপজেলা/থানার হাইস্কুল/মাদ্রাসা, সমমানের শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের ছাত্র-ছাত্রী জুনিয়র গ্রুপে, কলেজের ছাত্র-ছাত্রীবৃন্দ সিনিয়র গ্রুপে এবং  বিজ্ঞান ক্লাবের কর্মীগণ ও উদ্ভাবনে আগ্রহী অপেশাদার ব্যক্তিবর্গ বিশেষ  গ্রুপে প্রতিযোগিতামূলক বিজ্ঞান প্রদর্শনীতে অংশগ্রহণ করে থাকে।

 

কেন্দ্রীয় পর্যায়ের অনুষ্ঠান  বিজ্ঞানমেলা :-

আঞ্চলিক পর্যায়ের প্রতিযোগিতায় প্রতিটি কেন্দ্রে অংশগ্রহণকারী জুনিয়র, সিনিয়র ও বিশেষ গ্রুপের ১ম স্থান অধিকারী প্রতিযোগীর প্রজেক্ট ঢাকায় কেন্দ্রীয় প্রতিযোগিতার জন্য নির্বাচিত হয়।

 

বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিষয়ক অলিম্পিয়াড :-

2017 সাল থেকে জাতীয় বিজ্ঞান বিষয়ক অলিম্পিয়াডের আয়োজন হয়ে আসছে।  বিজ্ঞান বিষয়ক অলিম্পিয়াড ৩টি পর্যায়ে আয়োজিত হয়।

 

ক) আঞ্চলিক পর্যায়ে প্রতিটি উপজেলা কেন্দ্রে

খ) জেলা পর্যায়ে প্রতিটি জেলা কেন্দ্রে

গ) কেন্দ্রীয় পর্যায়ে ঢাকায়।

 

ক) আঞ্চলিক পর্যায়ে বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিষয়ক অলিম্পিয়াড আয়োজন:

আঞ্চলিক পর্যায়ে আয়োজিত অলিম্পিয়াডে জেলার সকল উপজেলা / থানার উচ্চ বিদ্যালয়, মাদ্রাসা ও উচ্চ মাধ্যমিক / সমমানের শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীরা যথাক্রমে জুনিয়র ও সিনিয়র গ্রুপে প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহণ করে থাকে।

 

খ) জেলা পর্যায়ে আয়োজন:

উপজেলা পর্যায়ে জুনিয়র ও সিনিয়র উভয় গ্রুপে বিজয়ী প্রথম ০৫ জন করে প্রতিটি উপজেলা থেকে প্রতিযোগী জেলা পর্যায়ে প্রতিযোগিতার জন্য মনোনীত হয়।

 

গ) কেন্দ্রীয় পর্যায়ে ঢাকায়:

প্রতিটি জেলাকেন্দ্র হতে জুনিয়র ও সিনিয়র উভয় গ্রুপে ১ম ও ২য় স্থান অধিকারী সর্বমোট ২৫৬ জন প্রতিযোগী কেন্দ্রীয় পর্যায়ে প্রতিযোগিতার জন্য নির্বাচিত হয়।

 

জাতীয় বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিষয়ক কুইজ:-

২০১৭ সাল থেকে জাতীয় বিজ্ঞান বিষয়ক কুইজ প্রতিযোগিতা আয়োজিত হয়ে আসছে। জাতীয় বিজ্ঞান বিষয়ক কুইজ প্রতিযোগিতা ৪টি পর্যায়ে অনুষ্ঠিত হয়।

  • আঞ্চলিক পর্যায়ে প্রতিটি উপজেলা কেন্দ্রে
  • জেলা পর্যায়ে প্রতিটি জেলা কেন্দ্রে
  • বিভাগীয় পর্যায়ে প্রতিটি বিভাগীয় কেন্দ্রে
  • কেন্দ্রীয় পর্যায়ে ঢাকায়

 

ক) আঞ্চলিক পর্যায়ে প্রতিটি উপজেলা কেন্দ্রে:

আঞ্চলিক পর্যায়ে আয়োজিত প্রতিটি জেলার সকল উপজেলা / থানার উচ্চ বিদ্যালয়, মাদ্রাসা অথবা সমমানের শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের মাধ্যমিক স্তরের শিক্ষার্থীরা নিজ নিজ প্রতিষ্ঠানে এককভাবে প্রতিযোগিতার মাধ্যমে বিজয়ী প্রথম তিন জনের সমন্বয়ে গঠিত একটি দল উপজেলা পর্যায়ে গঠিত অন্যান্য দলের সাথে প্রতিযোগিতা করে।

 

খ) জেলা পর্যায়ে কুইজ আয়োজন:

উপজেলা পর্যায়ে প্রতিটি উপজেলা হতে বিজয়ী প্রথম পাঁচটি দল নিয়ে জেলা পর্যায়ে প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত হয়।

 

গ) বিভাগীয় পর্যায়ে কুইজ আয়োজন:

প্রতিটি জেলা হতে বিজয়ী প্রথম পাঁচটি দল বিভাগীয় পর্যায়ে প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহণ করে।

 

ঘ) কেন্দ্রীয় পর্যায়ে ঢাকায়:

বিভাগীয় পর্যায়ে প্রতিটি বিভাগে ১ম, ২য় ও ৩য় স্থান অধিকারী সর্বমোট ২৪টি দল কেন্দ্রিয় পর্যায়ে প্রতিযোগিতার জন্য নির্বাচিত হয়।

 

ভবিষ্যৎ পরিকল্পনা

  • বিশ্বমানের বিজ্ঞান জাদুঘর প্রতিষ্ঠা করা,
  • আরও মিউজুবাস, 4D মুভি বাস ও অবজারভেটরি ভ্যান সংগ্রহ করা
  • ঢাকা ব্যতীত অন্যান্য বিভাগীয় শহরে জাতীয় বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি জাদুঘরের শাখা স্থাপন
  • বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি কমপ্লেক্স ভবন নির্মাণ করা।

Share with :

Facebook Facebook